কক্সবাজার, বুধবার, ১ ডিসেম্বর ২০২১

শিরোনাম

রামুতে প্রবাসীর স্ত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ বিকেএসপির ঠিকাদার কাদের সিকদার ও সাইফুলের বিরুদ্ধে


প্রকাশের সময় :৩০ ডিসেম্বর, ২০২০ ৮:১৭ : অপরাহ্ণ

                                           ধর্ষণের ভিডিও ফেসবুক-ইউটিউবে প্রচারের ভয় দেখিয়ে বার বার ধর্ষণ

রামুর বিকেএসপি’তে সরকারি চাকুরির প্রলোভন দেখিয়ে প্রবাসীর স্ত্রীকে ধর্ষণ । ঠিকাদার ধর্ষক কাদের সিকদার ও সাইফুলের বিরুদ্ধে থানা, ডিসি ও দুতাবাসে অভিযোগ দায়ের

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিঃ

কক্সবাজার জেলার রামু উপজেলার জোয়ারিয়ানালায় নির্মাণাধীন বিকেএসপি’তে সরকারি চাকরি দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে এক প্রবাসীর স্ত্রী তিন সন্তানের জননীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এই ঘটনায় ধর্ষিতার প্রবাসী স্বামী বাদী হয়ে সংশ্লিষ্ট দুতাবাস, রামু থানা ও কক্সবাজার জেলা প্রশাসক ও প্রবাসী কল্যান মন্ত্রনালয়ে পৃথক অভিযোগ দায়ের করেছেন।

দায়েরকৃত অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, রামু উপজেলার জোয়ারিয়ানালাতে নির্মানাধীন বিকেএসপিতে মাসিক ৫০ হাজার টাকা বেতন, সরকারী কোয়ার্টার ও পাজারো গাড়ি দেবার প্রলোভন দেখিয়ে বিকেএসপির ঠিকাদার কাদের সিকদার ও সাব- ঠিকাদার সাইফুল ইসলাম টানা কয়েকমাস ধরে ধর্ষণ করে আসছে স্থানীয় প্রবাসীর স্ত্রী নাঈমা খানমকে। শুধু তাই নয় ধর্ষণের ভিডিও মোবাইলে ধারন করে ফেসবুক-ইউটিউবে ছেড়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে বার বার শারীরীক সম্পর্ক স্থাপনে বাধ্য করা হয়েছে এই গৃহবধুকে।

স্থানীয় লোকজন ও অভিযোগ সুত্রে আরো জানা যায়, রামু উপজেলার জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের সওদাগর পাড়ার বাসিন্দা মৃত আজিজুর রহমান সওদাগরের ছেলে সাইফুল মুলত একজন দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী ও ইয়াবার গড ফাদার। সে এলাকার প্রভাব খাটিয়ে রামুতে নির্মাণাধীন বিকেএসপিতে টেন্ডারপ্রাপ্ত মেসার্স সিকদার কন্সট্রাকশন এন্ড বিল্ডার্স এর কাছ থেকে সাব-কন্ট্রাকটর হিসেবে কাজ নেয়। এরপর থেকে সে নারী লিপ্সু ঠিকাদার কাদের সিকদারের মন যুগিয়ে চলার জন্য এলাকার সুন্দরী নারীদের বিভিন্ন প্রলোভনে ফেলে সাইফুল ও কাদের সিকদারের বিছানা সঙ্গী বানাতো।

তারই ধারাবাহিকতায় সাইফুলের ফাঁদে পড়ে স্থানীয় জোয়ারিয়ানালা এলাকার এক প্রবাসীর স্ত্রী নাঈমা খানম। উচ্চ বেতনে বিকেএসপিতে সরকারী চাকুরী, বাড়ি-গাড়ি দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে লম্পট সাইফুল নাঈমা খানমকে ঠিকাদার কাদের সিকদারের সাথে দেখা করার নাম করে কক্সবাজারের একটি আবাসাসিক হোটেলে নিয়ে যান। সেখানে নিয়ে গিয়ে নাঈমা খানমকে সাইফুল ও কাদের সিকদার মিলে পালাক্রমে ধর্ষণ করেন এবং ধর্ষণের চিত্র মোবাইল ফোনে ধারন করে। ধর্ষণের ঘটনা কাউকে জানালে খুন করার হুমকী দেন। পরবর্তীতে এই ধর্ষণের ভিডিও ফেসবুক-ইউটিউবসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল করার ভয় দেখিয়ে এবং একই প্রলোভনে গত টানা দুই মাস ধরে ধর্ষণ করে আসছে লম্পট সাইফুল।

স্থানীয়রা জানান-অনেক কলেজ পড়ুয়া ছাত্রী সহ প্রবাসী-উচ্চবিত্ত পরিবারের নারীদের টার্গেট করে তাদের প্রলোভন দেখিয়ে যৌন হয়রানি করে আসছিল এই সাইফুল। অনেকেই এরমধ্যে নিজের ইজ্জত সম্ভ্রম হারালেও মান সম্মানের ভয়ে মুখ খুলেনি কেউ।

এ ব্যাপারে জানতে রামুর বিকেএসপি‘র ঠিকাদার কাদের সিকদারের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে- তিনি বলেন আমি কয়েকটা মহিলাকে বিকেএসপিতে দেখেছি। তবে আনিত অভিযোগের বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না বলে জানান।

ধর্ষিতার প্রবাসী স্বামী বলেন, অভিযুক্ত সাইফুল ইসলাম বিকেএসপিতে ঠিকাদরীর সুবাদে তার স্ত্রী নাঈমা খানমের সাথে সখ্যতা গড়ে তুলে। প্রাথমিক পর্যায়ে সাধারন কথোপকথন ভেবে নাঈমার স্বামী এড়িয়ে গেলেও পরবর্তীতে তার ফোনের কল লিস্ট দেখে হতবাক হয়ে যান। লম্পট সাইফুল প্রতিদিন রাতে ও দিনে অসংখ্যবার ফোন করে বিকেএসপিতে চাকুরী প্রলোভন দেখিয়ে বিকেএসপির ডি.জি থেকে শুরু করে ডিডি’র সাথে পরিচয় করিয়ে দেয়ার প্রতিশ্রæতি দিয়ে কক্সবাজার শহরে নিয়ে গিয়ে বিভিন্ন হোটেলে তুলে বিকেএসপির প্রধান ঠিকাদার কাদের সিকদারের সাথে দেখা করিয়ে দেয়। পরে বিকেএসপির প্রধান ঠিকাদার কাদের সিকদারের যৌন লালসার স্বীকার হতে বাধ্য হয় তার স্ত্রী। শত বাধা শর্তেও সেই ধর্ষন মুহূর্তের ভিডিও মোবাইলে ধারন করে লম্পট সাইফুল। তিনি আরো বলেন-মোবাইলে ধারনকৃত ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেবার ভয় দেখিয়ে তার স্ত্রীর সাথে মাসের পর মাস যৌন নির্যাতন করে সাইফুল সহ কাদের গং। প্রবাসী স্বামী আরো বলেন- তাদের এগারো বছরের দাম্পত্যজীবনে দুই মেয়ে ও এক ছেলের জননী নাঈমা। তার অজান্তে, তার অনুপস্থিতিতে লম্পট সাইফুলের লোভনীয় চাকুরীর প্রলোভনে সর্বশান্ত আজ ফুলের মত সাজানো একটি পরিবার।

প্রবাসী বলেন-তাদের সংসারে কোন কিছুর অভাব ছিলনা। শুধু সাইফুলের প্রতারনার ফাঁদে পড়ে তাদের সংসাটা ভেঙ্গে গেল। ভুক্তভোগীর পরিবার জানিয়েছেন, ন্যায় বিচারের আশায় প্রবাসী স্বামী বাদী হয়ে রামু থানা, উপজেলা প্রশাসন, কক্সবাজার জেলা প্রশাসকসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

ভুক্তভোগীর পরিবারের দাবী, লম্পট সাইফুলের কারনে যেন তাদের সংসারের মত আর কোন পরিবার ভেঙ্গে তছনছ না হয়। পাশাপাশি লম্পট সাইফুল ও বিকেএসপির ঠিকাদার কাদের সিকদারের বিরুদ্ধে আাইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট প্রসাশনের প্রতি জোর দাবী জানিয়েছেন।