কক্সবাজার, সোমবার, ২১ জুন ২০২১

শিরোনাম

কুতুবদিয়ায় শেষ মুহূর্তেও জমছেনা পশুর হাট:


প্রকাশের সময় :৩০ জুলাই, ২০২০ ৯:৩৩ : পূর্বাহ্ণ

কুতুবদিয়ায় উপজেলায় মাত্র ২ হাট হলেও শেষ মুহূর্তেও জমছেনা বেঁচা কেনা। তবে দর্শক বেশি। সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, উপজেলা প্রশাসনের নির্ধারিত বড়ঘোপ সমুদ্র সৈকতে বসা পশুর হাটে বড় পশু বিশেষ করে বড় গরুর চাহিদা কম।

কৃষকেরা বাড়িতে মোটাতাজা করেছে অনেক পশু। দামও তুলনামূলক কম। তবুও মাঝারি আকারের গরুর চাহিদাই বেশি। ৫০ থেকে ৮০ হাজার টাকার ভিতরেই কুরবানির পশু ক্রয়ে আগ্রহ দেখা যায় ক্রেতাদের।
গত শুক্রবার এ হাটে সর্বোচ্চ গরুটির দাম হাঁকা হয়েছিল আড়াই লাখ। তবে সেটি বিক্রি হয়নি। এ হাটে বড় বিক্রির ষাঁড়টি ছিল দেড় লক্ষ টাকার। জানালেন সংশ্লিষ্ট ইজারাদার। একই বেঁচা কেনা দেখা যায় অপর পশুর হাট ধুরুংবাজারে। মঙ্গলবার (২৮ জুলাই) দ্বীপের উত্তরজোনে ব্যবসা কেন্দ্র এ হাটে বড় পশুর দাম চাওয়া হচ্ছে দেড় লক্ষ টাকা। এ হাটেও মাঝারি ধরনের পশুর চাহিদা বেশি।
বাজারের ইজারাদার কামরুল হাসান সিকদার জানান, প্রচুর পশু আসছে হাটে। তবে বিক্রি কম। দেখার জন্যই দর্শকের সংখ্যাই বেশি । গত শনিবার হাটে আড়াই শ ছোট বড় পশু উঠে ছিল। বিক্রি হয়েছে ৪০ টি। বড় পশুর দিকে ক্রেতাদের নজর কম। এর প্রধান কারণ হিসেবে তিনি বলেন, করোনায় বাহির থেকে বেপারি আসেনি। করোনায় বির্পযস্ত অর্থনৈতিক। লবনের দাম নেই। কি দিয়ে পশু ক্রয় করবে মানুষ। সাগরে মাছ শিকারও বন্ধ ছিল ৬৫ দিন। ফলে সব দিক থেকেই অর্থ সংকটে দ্বীপের মানুষ।

হাটে স্বাস্থ্য বিধি মানার চেষ্টা করা হচ্ছে। পুলিশ, পশু চিকিৎসক নিয়মিত বসার সুযোগ রয়েছে এখানে। নামমাত্র শতকরা ২ টাকা হাশিল (ট্যাক্স) নিচ্ছে এ হাটে। তবে ঈদের আগের দিন পর্যন্ত পশু বেঁচা কেনা হবে এ আশা করছেন তারা।

ট্যাগ :