কক্সবাজার, শুক্রবার, ৪ ডিসেম্বর ২০২০

দৈনিক আপন কন্ঠ পরিবারের পক্ষ থেকে সাংবাদিক আকরাম’কে সম্মাননা প্রদান


প্রকাশের সময় :১৮ নভেম্বর, ২০২০ ১২:৪১ : পূর্বাহ্ণ

আপন কন্ঠ রিপোর্টঃ

সারাদেশে ইয়াবা নির্মূল ও বঙ্গোপসাগরকে জলদস্যুমুক্ত করতে বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রশাসনকে নানা ধরনের সহযোগিতা করে দেশে অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপনকারী সাংবাদিক মীর মোহাম্মদ আকরাম হোসাইন’কে বিশেষ সম্মাননা প্রদান করেছে “দৈনিক আপন কন্ঠ” পরিবার।

মঙ্গলবার (১৭ নভেম্বর) সন্ধ্যায় কক্সবাজার শহরের আপন টাওয়ারস্থ “দৈনিক আপন কন্ঠ” পত্রিকার নিজস্ব কার্যালয়ে এই সম্মাননা প্রদান করা হয়। এসময় সাংবাদিক আকরামের হাতে সম্মাননা ক্রেষ্ট তুলে দেন দৈনিক আপন কন্ঠ’র সম্পাদক মোহাম্মদ হোসাইন, প্রধান উপদেষ্টা ব্যারিস্টার আবুল আলা ছিদ্দিকী, নির্বাহী সম্পাদক মোহাম্মদ সেলিমসহ আপন কন্ঠ পরিবারের কর্মকর্তারা।

এসময় সাংবাদিক মীর মোহাম্মদ আকরাম হোসাইন বলেন- দৈনিক আপন কন্ঠ কক্সবাজারের প্রাচীন ও প্রতিষ্ঠিত একটি পত্রিকা।

কক্সবাজারের অনেক প্রতিষ্ঠিত সাংবাদিকের সাংবাদিকতার হাতে কড়ি আপন কন্ঠ’র মাধ্যমে হয়েছে। এছাড়া বস্তুনিষ্ট ও গঠনমুলক সংবাদ পরিবেশনের মাধ্যমে কক্সবাজারের সার্বিক উন্নয়নে দৈনিক আপন কন্ঠের ভুমিকা অপরিসীম। তিনি বলেন- দৈনিক আপন কন্ঠ পত্রিকা আজ আমাকে যে সম্মান দিয়েছে তা কক্সবাজারের সাংবাদিকতার ইতিহাসে দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে।

পত্রিকার প্রকাশক-সম্পাদকসহ সকল কলা-কুশলীদের প্রতি ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন তিনি।
এর আগে সাংবাদিক আকরাম হোসাইন “দৈনিক আপন কন্ঠ” পত্রিকার সম্পাদক মোহাম্মদ হোসাইন’র সাথে কুশল বিনিময় করেন এবং কক্সবাজারের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড ও সাংবাদিকতার বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন।

সাংবাদিক মীর মোহাম্মদ আকরাম হোসাইন তার সাংবাদিকতার দায়িত্বপালনকালীন বিভিন্ন জনগুরুত্বপূর্ন ও প্রসংশনীয় কর্মকান্ড সম্পাদন করেছেন।

এর মধ্যে দেশের সমুদ্রকে জলদস্যু মুক্ত করতে জলদস্যুদের সাথে সখ্যতা অর্জন করে বিভিন্নভাবে বুঝিয়ে দীর্ঘদিন অক্লান্ত পরিশ্রম করে স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনতে সাংবাদিক আকরাম র‌্যাব ও জলদস্যুদের মধ্যে সেতুবন্ধন তৈরী করেন।

যার ফলশ্রুতিতে ২০১৮ সালের ২০ অক্টোবর দক্ষিন চট্টগ্রামে প্রথমবারের মত স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার প্রত্যয়ে ৯৭টি আগ্নেয়াস্ত্র ও ৭,৫০০ পিস তাজা গুলি সহ ৪৩ জন জলদস্যু র‌্যাবের কাছে আত্মসমর্পন করেন। যার মধ্যে কক্সবাজারের ছিল ৩৭ জন।

এরপর বাংলাদেশ থেকে ইয়াবা নির্মূলের উদ্দেশ্যে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়সহ দেশের সল ডিপার্টমেন্টের তালিকাভুক্ত ইয়াবা কারবারীদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনতে আলোচেনা শুরু করেন শীর্ষ ইয়াবা কারবারীদের সাথে।

তাদের সাথে দফায় দফায় আলোচনার ফলশ্রুতিতে শীর্ষ ইয়াবা কারবারীরা প্রশাসনের কাছে আত্মসমর্পন করতে রাজি হয়। তারই ধারাবাহিকতায় কক্সবাজারের টেকনাফে ২০১৯ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারী ১০২ জন তালিকাভুক্ত ইয়াবাকারবারী তাদের কাছে থাকা ৩০টি অস্ত্র ও ৩ লাখ ৫০ হাজার পিস ইয়াবা জমা দিয়ে স্বরাষ্টমন্ত্রীর কাছে আত্মসমর্পন করেন।

সাংবাদিক আকরামের সাংবাদিকতার দুরদর্শিতায় ২০১৯ সালের ২৩ নভেম্বর মহেশখালীতে স্বাভাবিক জীবনে ফেরার আশ্বাসে ৯৬ জন দুর্ধর্ষ জলদস্যু ও অস্ত্র তৈরির কারিগর অস্ত্র তৈরীর মেশিনসহ আত্মসমর্পন করেন।

এবং সাংবাদিক আকরামের সহযোগিতায় সর্বশেষ চলতি বছরের ১২ নভেম্বর চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে স্বাভাবিক জীবনে ফেরার প্রত্যয়ে ৯০টি আগ্নেয়াস্ত্র ও ২৫ হাজার রাউন্ড গুলিসহ ৩৪ জন জলদস্যু আত্মসমর্পন করেন।

যার মধ্যে ছিল-বঙ্গোপসাগরের ত্রাসখ্যাত দুর্ধর্ষ জলদস্যু বাইশ্যা ডাকাত অনুসন্ধ্যানী সাংবাদিক মীর মোহাম্মদ আকরাম হোসাইন এর এসব কৃতিত্বের জন্য পেয়েছেন সরকারী -বেসরকারী বিভিন্ন বাহিনী ও প্রতিষ্ঠানের সম্মাননাও। এর মধ্যে বাংলাদেশ পুলিশ ও র‌্যাব কর্তৃক পাওয়া সম্মাননা উল্লেখযোগ্য।

ট্যাগ :